একাত্তরের পরাজিত শক্তি আমাদের সন্তানদের জঙ্গী বানাচ্ছে : ডা. নুজহাত

207

শহীদ বুদ্ধিজীবী কন্যা ডা. নুজহাত বলেছেন, একাত্তরের পরাজিত শক্তি আমাদের সন্তানদের জামায়াত-শিবির ও জঙ্গী বানিয়ে ফেলছে।

তিনি বলেন, এজন্য আমাদের রাজনৈতিক সচেতন হতে হবে। একজন ফজিলুতেন্নাসা মুজিব না হলে একজন শেখ হাসিনা হবেনা। তাই আপনাকে ইতিহাস জানতে হবে, নিজের সন্তানকে ইতিহাস জানাতে হবে। আমরা নিশ্চিতভাবে বলতে পারি আমরা সোনার বাংলা তৈরি করতে পারবো।শুধু নিজের ঘরে বঙ্গবন্ধুর মতো পুত্র তৈরী করুন। শেখ হাসিনার মতো কন্যা তৈরি করুন।

গতকাল শুক্রবার (১৩ ডিসেম্বর) চট্টগ্রামের বিজয় মেলা পরিষদের নারী সমাবেশে এক আলোচনা সভায় অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন চিনি

ডা. নুজহাত বলেন, আপনার সন্তান যদি কখনো প্রশ্ন করে এদেশের স্বাধীনতা কে ঘোষনা করেছেন। তখন আপনাদের বলতে হবে সেটা বঙ্গবন্ধু ৭ই মার্চ স্বাধীনতার ডাক দিয়েছেন। জিয়াউর রহমান নয়, স্বাধীনতা ঘোষনা করেছেন এম এ হান্নান। ছেলেমেয়েদের ইতিহাস জানাতে হবে, শত্রু চিনিয়ে দিতে হবে।

এসময় তিনি মায়েদের সতর্ক করে বলেন, আমাদের মেয়েদের তারা জামায়াতে ইসলামীর সদস্য করে ফেলছে। আমাদের শিক্ষিত ছেলেদের তারা জঙ্গী করে ফেলছে। শিক্ষিত ছেলেরা হলি আর্টিজেনে হামলা করছে। তাই আপনাকে সচেতন হতে হবে, রাজনীতি করতে হবে এবং ইতিহাস জানতে হবে। নয়তো আপনার সন্তান হলি আর্টিজেনের মতো মানুষ মেরে নিজেও মরবে।

নুজহাত বলেন, তারা কিন্তু আমার বাবাকে হত্যা করে এ মাটিতে ফেলে রেখেছিল। তিনি ছিলেন তৎকালিন পূর্ব পাকিস্তানের শ্রেষ্ট একজন চক্ষু ডাক্তার। শুধুমাত্র স্বাধীন বাংলাদেশ চাওয়ার কারনেই তারা আমার বাবাকে হত্যা করেছে। এসময় বক্তব্যে কান্নাজড়িত কন্ঠে তিনি বলেন, আমার বাবার মৃত্যুর পর সারাজীবন আমার দাদী নিজের ছেলের জন্য কাঁদতে কাঁদতে মারা গেছেন।

ডা. নুজহাত বলেন, আমাদের বিজয় অর্জন হয়েছে ১৬ ডিসেম্বর, এদিন আমাদের বিজয় দিবস। কিন্তু আমাদের রাজনৈতিক ভাবে যে বিজয় তা কিন্তু এখনো সম্পূর্ন ভাবে অর্জিত হয়েছে বলে আমি মনে করিনা। অর্থ্যাৎ আমাদের যে শত্রু সে রাজাকার আলবদররা এবং তাদের বংশোদ্ভুত জামায়াত শিবির এবং তাদের সহযোগি বিএনপি এখনো একাত্তরের পরাজিত শক্তি পাকিস্তানীদের দালালীর রাজনীতি চলমান রেখেছে।